প্রকল্প সমূহ

দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের বিশেষ অভিধান
জনগণের দোরগোড়ায় স্কাউট সেবা

অনলাইন জিডি এবং লস্ট ও ফাউন্ড সার্ভিস


কোনো কিছু হারালে কিংবা জীবন ও সম্পদের ক্ষতির আশঙ্কা থেকে নাগরিকরা থানা পুলিশের দ্বারস্থ হন। এক্ষেত্রে পুলিশকে সাধারণভাবে তথ্য জানানোর মাধ্যম হচ্ছে সাধারণ ডায়েরি বা জিডি। একই সঙ্গে হারানো জিনিস ফিরে পাওয়ার পর সেটা মালিককে ফেরত দেওয়ার আইনি প্রক্রিয়াও পুলিশ দেখভাল করে। জিডি এবং হারানো ও পাওয়ার এই পরিসেবাকে অনলাইন আর এসএমএস সার্ভিসের আওতায় আনতে এই প্রকল্প। এর মাধ্যমে এই দুই প্রক্রিয়া আগের তুলনায় সহজতর হয়েছে।

চিহ্নিত সমস্যা এবং প্রস্তাবিত সমাধান

জিডি কিংবা হারানো ও পাওয়ার পরিষেবা নেওয়ার ক্ষেত্রে নানা রকম জটিলতা আছে। আইন অনুযায়ী যে থানা এলাকায় কোনো কিছু হারিয়েছে সে থানাতেই জিডি করতে হয়। কোন জিনিস কোথায় হারালো মালিক সেটা নিশ্চিত নাও হতে পারেন। এ অবস্থায় পুলিশের কাছে গেলে তারা আইনি প্রক্রিয়া সেভাবে এগোতে পারেন না। তেমনিভাবে হারানো ও প্রাপ্তি পরিষেবার ক্ষেত্রে এমনটা ঘটতে পারে। জিডি এবং হারানো-পাওয়া পরিষেবা অনলাইনে নিয়ে আসতে পারলে পুলিশের পক্ষ থেকে জনগণকে উন্নততর ই-সার্ভিস প্রদান সম্ভব।

থানা পুলিশের জিডি এবং হারানো ও পাওয়া পরিষেবা অনলাইনে নিয়ে আসা হবে এই প্রকল্পের আওতায়। এতে প্রয়োজন পড়বে উচ্চ কনফিগারেশনের সার্ভার, ট্রাফিক পয়েন্ট অ্যাক্সেস ডিভাইস, অনলাইন/অফলাইন ইউপিএস, প্রিন্টার, বিটিসিএল ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট কিংবা টেলিটক/গ্রামীণ ফোনের থ্রি-জি মডেম, থ্রি-জি সিমকার্ড, স্টেশনারি রোল পেপারসহ আরও কিছু হার্ডওয়ার পণ্য। এই প্রজেক্টের মাধ্যমে নাগরিকরা জিডি সাবমিট হওয়ার তথ্য এসএমএস-এর মাধ্যমে পেয়ে যাবেন। অন্যদিকে নাগরিকরাও নির্দিষ্ট নম্বরে কি-ওয়ার্ড পাঠাতে পারেন, যার প্রতিউত্তরে তার জিডি কিংবা হারানো ও প্রাপ্তির সর্বশেষ অবস্থা জানা যাবে। পুলিশের জন্য নিবেদিত শর্টকোড 7373 ও 7374 নম্বর দু’টি এই উদ্দেশ্যে ব্যবহার হতে পারে। আবার সরকারি ফি যেটা জমা দিতে হয় সেটাও অনলাইনে কিংবা মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে দেওয়া যাবে।