প্রকল্প সমূহ

পাটের কার্ড বানানোর উৎকৃষ্ট পদ্ধতি
কমিউনিটি এফ এম রেডিও স্টেশন

ঔষধের বিরূপ প্রতিক্রিয়া অনলাইন রিপোর্টিং সিস্টেম


চিহ্নিত সমস্যা এবং প্রস্তাবিত সমাধান

অনলাইন ভিত্তিক ADR (Adverse Drug Reactions)/ঔষধের বিরূপ প্রতিক্রিয়া রিপোর্টিং সিস্টেম। এডিট / সম্পাদন ঔষধের বিরূপ প্রতিক্রিয়া বা সংশ্লিষ্ট কোন সমস্যা চিহ্নিতকরণ, বিশ্লেষণ, মূল্যায়ণ এবং প্রতিরোধ করার স্বীকৃত পদ্ধতি হল pharmacovigilance যা প্রতিটি দেশের drug regulatory authority এর মত বাংলাদেশের ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর(DGDA) এর অন্যতম কাজগুলোর একটি। Drug safety বিষয়টি বিবেচনা করে পৃথিবীর প্রায় ১৩৪ টি দেশের মত বাংলাদেশেও pharmacovigilance এর কার্যক্রম শুরুর প্রেক্ষিতে USAIDকর্তৃক পরিচালিত সংস্থা SIAPSএর সহায়তায় DGDA নতুনভাবে ADR Monitoring Cell (ADRM)গঠন করে এর কার্যক্রম শুরু করেছে। ২০১৩ সালের ১লা জানুয়ারী গঠিত ০৬(ছয়) সদস্য বিশিষ্ট এই সেল কে জনস্বার্থে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় একই সালের ৩রা সেপ্টেম্বর National Drug Monitoring Centre হিসেবে ঘোষণা করতঃ প্রজ্ঞাপণ জারী করেছে। উক্ত সেল কে প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা প্রদানের জন্য ২৫/০৪/২০১৪ তারিখে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর এর মহাপরিচালককে সভাপতি করে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের বিশেষজ্ঞ প্রতিনিধির সমন্বয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় কর্তৃক ১৬ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। এরই মধ্যে ADRReporting Formসংগ্রহ ও মুল্যায়ণ করা শুরু হয়েছে। প্রাথমিকপর্যায়েঢাকাশহরেরবিভিন্নক্যাটাগরিরমোট৩০(ত্রিশ) টিহাসপাতাল/চিকিৎসা প্রদানকারী ইনস্টিটিউট এবং ৩০(ত্রিশ)টি ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানীকে ADRReporting এর জন্য নির্বাচন করে এসকল প্রতিষ্ঠান থেকে একজন করে ফোকাল পয়েন্ট নির্ধারণ পূর্বক তাদেরকে প্রাথমিককভাবে ফার্মাকোভিজিল্যান্স কাজের উপর প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে।বর্তমানে বিভিন্ন হাসপাতাল/চিকিৎসা প্রদানকারী ইনস্টিটিউট ও ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানী থেকে কর্মকর্তাদের হাতে হাতে ADR Report সংগ্রহ করতে হয় যা অনেক সময়সাপেক্ষ ও ব্যায়বহুল। আমাদের দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে হাসপাতাল, ক্লিনিক এবং অন্যান্য স্বাস্থ্য সেবা দানকারী প্রতিষ্ঠান সহ ব্যক্তি পর্যায়ে রোগীর প্রতিনিয়ত বিভিন্ন ঔষধ সেবনে Adverse drug reaction বা ঔষধের বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিলেও সচেতনতার অভাব, হেলথ প্রফেশনালদের অনাগ্রহ এবং পর্যাপ্ত নেটওয়ার্কিং-এর অভাবে সেগুলোর রিপোর্ট পাওয়া যায়না। ফলে মানুষ ক্ষতিগ্রস্থ হলেও ক্ষতির সঠিক কারণ চিহ্নিতকরণ ও তা প্রতিকারের উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ সম্ভব হয়না। ঔষধ প্রশাসন স্বপ্রণোদিত হয়ে জনস্বাস্থ্যের কথা বিবেচনা করে অত্র দপ্তরের কয়েকজন কর্মকর্তাকে সকল নির্ধারিত হাসপাতালে সংশ্লিষ্ট ফোকাল পয়েন্ট এর নিকট হতে ঔষধের বিরূপ প্রক্রিয়া লিপিবদ্ধকরণের ফর্ম পূরণকৃত অবস্থায় হাতে হাতে সংগ্রহ করার দায়িত্ব প্রদান করেছে। এতে করে এক দিনে ৪-৫ জন কর্মকর্তার পক্ষে দিনব্যাপী কাজ করে ২-৩ তির বেশি পুরন কৃত ফর্ম সংগ্রহ করতে পারছেনা । অনেক সময় ঘণ্টার পর ঘণ্টা বসে থেকে ফোকাল পয়েন্ট এর ব্যস্ততার কারণে দেখা করাও সম্ভব হয় না। জনস্বাস্থ্য ও জনস্বার্থের সাথে ওতপ্রোত ভাবে জড়িত এ বিষয়টি তথ্য সংগ্রহের জটিলতার কারণে এখনও আশাপ্রদ গতিশীলতা অর্জন করতে পারছেনা ।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অধীনস্থ AEFI Monitoring,কালাজ্বর ওঅন্যান্য রোগ নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচীর সাথে ঔষধ প্রশাসনের কর্মসূচী সমন্বয় করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।ঔষধ প্রশাসনের আবেদনের প্রেক্ষিতে বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা কর্তৃক National Drug Monitoring Centre, Bangladesh কে WHO Program for InternationalDrug Monitoring in Uppsala,Sweden এর সহযোগী সদস্য হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। শীঘ্রই সকল বিভাগীয় পর্যায় ADR Monitoring কার্যক্রম চালু করা হবে এবং তা সুষ্ঠুভাবে ও দ্রুত সম্পাদনের জন্য একটি স্বতন্ত্র Online Software System ডেভেলপ করার চিন্তা ভাবনা চলছে। এ অবস্থার প্রেক্ষিতে প্রাথমিক পর্যায়ে ঢাকা বিভাগের ৩টি হাসপাতাল নিয়ে Online Software System চালুকরা হবে যা পরবর্তীতে সারাদেশব্যাপী জেলা ভিত্তিকভাবে সমন্বয়সাধন করা হবে যাতে দ্রুততম সময়ের মাঝে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সমূহ নির্দিষ্ট ফর্মে পূরণকৃত অবস্থায় পাওয়া যায়। এতে করে অফিসে বসে সমগ্র দেশের সকল হাসপাতালের ঔষধের বিরূপ প্রতিক্রিয়ার যাবতীয় তথ্য অনলাইনে নির্দিষ্ট ফর্মে পুরনপুর্বক তাৎক্ষনিক ভাবে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর এ প্রেরণ ও তদানুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা সম্ভব হবে । এতে ঔষধের বিরূপ প্রতিক্রিয়ার জন্য নির্দিস্ট ফর্ম পূরণের নিমিত্তে বর্তমানে নিয়োজিত ঔষধ প্রশাসনের কর্মকর্তাগণের বিভিন্ন হাসপাতালে ক্রমাগত গমনপুর্বক তথ্য সংগ্রহের সময় সাশ্রয়ের সাথে সাথে নির্দিষ্ট হাসপাতাল/প্রতিষ্ঠান সমূহে যাতায়াত একেবারে শূন্যের কোঠায় নেমে আসবে । অনলাইন ADR SOFTWARE REPORTING এর মাধ্যমে স্বল্পতম সময়ে সমগ্র দেশের বিভিন্ন পর্যায়ে স্থাপিত হাসপাতাল/প্রতিষ্ঠান সমূহে খুব সহজেই অত্র অধিদপ্তর কর্তিক নিয়ন্ত্রণ ও এর মাধ্যমে প্রাপ্ত বিরূপ প্রতিক্রিয়ার তথ্যসমূহ WHO Program for InternationalDrug Monitoring in Uppsala,Sweden -এ দাখিল করা সম্ভবপর হবে যা জনস্বাস্থ্যের বিবেচনায় স্বাস্থ্য খাতের সার্বিক উন্নয়নে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে।