প্রকল্প সমূহ

Online Fertilizer Recommendation: Automation of data processing and data updating
Innovative e-learning Initiative for Reaching the Unreached

স্বল্পমূল্যে বাক-প্রতিবন্ধীদের সহায়ক যন্ত্র


বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যার ১০ শতাংশ প্রতিবন্ধী মানুষের উল্লেখযোগ্য সংখ্যক বাক সংক্রান্তু সমস্যাগ্রস্ত। কিন্তু তাদের মিথষ্ক্রিয়ায় সহায়ক যন্ত্রের দাম ২০ হাজার থেকে শুরু করে তিন লাখ টাকা হওয়ায় সেটা অনেকের নাগালের বাইরে। এই সমস্যাকে সামনে রেখে দীর্ঘ গবেষণার মাধ্যমে স্বল্পমূল্যের বাক সহায়ক যন্ত্র আবিষ্কার করেছেন কাজী বজলুর রহমান। ৭ হাজার টাকা আনুমানিক মূল্যের এই যন্ত্র আবিষ্কারে সহায়তা করেছে এ টু আই।

চিহ্নিত সমস্যা এবং প্রস্তাবিত সমাধান

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর(বিবিএস) ২০১০ সালের তথ্য অনুযায়ী বাংলাদেশের বিভিন্ন বয়সী ৪০ লাখ একেবারে কথা বলতে পারে না এমন বাক প্রতিবন্ধী মানুষ রয়েছে এবং ৬০ লাখের বেশি মানুষ কথা বলা নিয়ে কোনো না কোনো সমস্যা ভুগছেন। তাদের জন্য দৈনন্দিন অনেক স্বাভাবিক কাজকর্ম সম্পাদনও কষ্টসাধ্য। বাক সহযোগী যন্ত্রের দাম ২০ হাজার থেকে শুরু করে তিন লাখ টাকা পর্যন্ত হওয়ায় সেটা বাংলাদেশের অধিকাংশ মানুষের নাগালের বাইরে। ইশারা ভাষা শিক্ষা নেওয়াও বেশ কঠিন কাজ, বিশেষ করে শিশুদের জন্য। তাদের পরিবারের সদস্যরাও ইশারা ভাষা না বুঝায় ঠিকমতো মিথষ্ক্রিয়া করতে পারেন না।

এ টু আই এর সার্ভিস ইনোভেশন ফান্ডের আওতায় কাজী বজলুর রহমান একটি ইলেকট্রনিক যন্ত্র তৈরি করেছেন নানাবিধ অডিও বার্তার দিয়ে ১৬টি পুশ বাটনের মাধ্যমে। ছোট পরিসরের নিয়ন্ত্রিত এই যন্ত্রে আছে রিচার্জযোগ্য 7.4v liPo ব্যাটারি, যা একবার চার্জ করলে একাধারে তিনদিন পর্যন্ত কাজ করতে পারে। সেখান প্যানিক বাটন আছে, লেখা আছে ব্যবহারকারীর নাম ও জরুরি প্রয়োজনের মোবাইল নম্বর। জাতীয় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন ফাউন্ডেশন থেকে ফিডব্যাক পেয়ে আবিষ্কারক এখন এই যন্ত্রকে আরও ব্যবহারকারী সহায়ক ও সহজে বহনযোগ্য করতে বিনিয়োগকারী খুঁজছেন।